সফল বাংলাদেশ

সফল বাংলাদেশ: সব সফলতার খবর আলোচনা হোক গর্বের সাথে

Bangladesh wins offshore claim against Myanmar

NewImage


By Syed Tashfin Chowdhury 

DHAKA – Bangladesh has secured its claims to a full 200-nautical-mile exclusive economic zone in the Bay of Bengal, overcoming Myanmar’s claims to part of the territory by winning a landmark verdict in its favor from the United Nations International Tribunal for the Law of the Sea (ITLOS). 

In the first decision of its kind by any court or tribunal, the March 14, 151-page, verdict also came down in favor of Bangladesh regarding its claims to a substantial part of the outer continental shelf beyond 200 nautical miles. The finding, which is final, ends a long-running maritime dispute with neighbor Myanmar and allows energy-starved Bangladesh to press forward with exploration for offshore hydrocarbon deposits. 

“Through the verdict,” delivered in Hamburg of Germany, “we now

have an opportunity to explore more prospective zones than the ones which are nearer to Bangladesh’s coastline,” Hossain Mansur, chairman of state-owned energy company Petrobangla, told Asia Times Online. 

The finding represents an important achievement for Prime Minister Sheikh Hasina, who made resolving the dispute with Myanmar a priority after leaving prison in 2008 and before her election victory later that year. The tribunal’s verdict is particularly encouraging to Dhaka as it seeks ways to meet Bangladesh’s energy requirements without eroding its foreign exchange reserves. 

A key part of the tribunal’s finding gives Dhaka control over the entire 12-nautical-mile territorial sea around Saint Martin’s Island, which lies around 10 kilometers from both Bangladesh and Myanmar, which had earlier wanted it to be cut into half. South Korea’s Daewoo is extracting gas not far from the island off Myanmar’s Arakan coast, which is separated from Bangladesh’s Teknaf district by the Naf river as it flows to the sea. 

Once Petrobangla has a formal instruction from the Ministry of Foreign Affairs in Bangladesh along with a certified copy of the ITLOS verdict, it will be able to determine which exploration blocks fall within Bangladesh’s maritime territories, and then go forward with bidding for exploration licenses by energy companies, said Mansur. Both deep-water gas-blocks and several shallow-water areas are affected. 

As to the potential of the area, Mansur said, “We would be able to comment properly on that after we interpret the findings of the 2D seismic survey that ConocoPhillips is carrying out in the bay right now. We should have the report by April.” 

ConocoPhillips, the lone international oil company (IOC) at present involved in deep-water hydrocarbon exploration for Bangladesh in the Bay of Bengal, was awarded exploration rights over two deep-water gas blocks, DS-08-10 and DS-08-11, following a bidding round in February 2008. The ITLOS verdict will allow the company to explore those areas fully, after being limited until now by the border dispute. Bangladesh had offered 28 offshore blocks, 20 of them in deep water, but received a poor response from other IOCs due to the dispute with Myanmar and another with neighboring India. 

The Bay of Bengal has been perceived as a potential source for hydrocarbon ever since India discovered 100 trillion cubic feet of gas in 2005-06 and Myanmar discovered 7 trillion cubic feet of gas in the Bay. India has also discovered oil. 

In a Foreign Ministry press release on March 14, Bangladeshi Foreign Minister Dipu Moni said the ITLOS ruling, by a 21 to 1 vote, concludes a dispute that has “long delayed” exploration for hydrocarbon in the Bay of Bengal for “energy-starved Bangladesh”. 

The release mentioned that the case was “initiated by Bangladesh against Myanmar in December 2009”. The judgement read out by Jose Luis Jesus of Cape Verde, president of the tribunal, is “final and without appeal”. 

The release said, “Myanmar had claimed that its maritime boundary with Bangladesh cut directly across the Bangladesh coastline, severely truncating Bangladesh’s maritime jurisdiction to a narrow wedge of sea not extending beyond 130 nautical miles. Myanmar also claimed that the tribunal lacked jurisdiction to award continental shelf rights beyond 200 nautical miles from either State’s coast. The tribunal rejected both of these arguments.” 

In the release, Moni saluted Myanmar for it’s willingness to resolve matters legally. 

Even so, within Bangladesh there were some dissenting voices in the media, with popular newspaper Prothom Alo expressing concern on March 17 that the verdict may lead to Myanmar achieving some blocks that earlier belonged to Bangladesh. 

Bangladesh and Myanmar had both claimed 150,000 square kilometers of the Bay of Bengal since 1974, when the first talks for delineating the maritime boundary were initiated between the two nations. This came to a halt in 1986 and began again in November 2007. 

In October 2008, while visiting Dhaka, Myanmar Energy Minister Brigadier General Lun Thi had assured his Bangladeshi counterpart that Myanmar “would not conduct gas exploratory work in the disputed maritime boundary area until the issue was settled” between the two nations. 

However, on November 1, 2008, four drilling ships from Myanmar, escorted by two naval ships from the country, started exploration for hydrocarbon reserves south west of St Martin’s Island and within 50 nautical miles of Bangladesh. 

According to media reports, when three naval ships of Bangladesh went to challenge these, the Myanmar Navy alleged that the Bangladesh Navy ships were trespassing. This aggravated the dispute as Myanmar vowed to continue with the exploration despite the dispute with Bangladesh. 

The Bangladesh government told the Myanmar envoy in Dhaka that his country should suspend all activities within the declared maritime zones of Bangladesh according to the Territorial Waters and Maritime Zones Act 1974 of Bangladesh. 

In a March 15-report by Mizzima of Myanmar titled “Burma, Bangladesh maritime dispute ends”, it was recalled that on November 9, 2008, “Daewoo, [Norwegian drilling company] Transocean and the Burmese regime withdrew their vessels” after the “Korean and Chinese governments had intervened to de-escalate the situation”. 

China is set to be the destination of most of the gas Daewoo and its partners extract from off Myanmar’s Arakan coast. 

The ITLOS process began in December 2009 after the Bangladeshi government submitted a formal complaint against Myanmar regarding the “natural prolongation of the continental shelf and the baseline”. 

Bangladesh’s remaining maritime boundary dispute with India is expected to be settled in the UN’s Permanent Court of Arbitration based in The Hague, the Netherlands, in 2014. Bangladesh favors a principle based on “equity” while India, like Myanmar, favors an “equidistance” system to obtain bigger maritime areas. 

Newly appointed Indian High Commissioner to Bangladesh Pankaj Saran, while calling on Foreign Minister Moni in her office in Dhaka on March 17, said that India would favor a bilateral end to the sea dispute. 

source

Advertisements
এখানে আপনার মন্তব্য রেখে যান »

Bangladesh Wins Maritime Dispute with Burma

NewImage
Posted Thursday, March 15th, 2012 at 7:15 am

Bangladesh says a U.N. tribunal has ruled in its favor in a long-running maritime border dispute with Burma.

Foreign Minister Dipu Moni says the International Tribunal for the Law of the Sea has awarded her country an exclusive economic zone measuring 685 square kilometers in the Bay of Bengal, as well as full access to the outer continental shelf. The court also awarded Bangladesh a 41-square-kilometer territorial sea area around the island of St. Martin’s.

She says the decision means Dhaka can pursue oil and gas exploration in the resource-rich area.

Bangladesh filed its case against Burma at the U.N. maritime tribunal in 2009.

source VOA

এখানে আপনার মন্তব্য রেখে যান »

Bangladesh wins maritime boundary case with Burma

NewImage

 

Wednesday, 14 March 2012 15:56

Dhaka, Bangladesh: Bangladesh won a great victory in the maritime boundary case with Burma in the International Tribunal for the Law of the Sea (ITLOS) as it delivered the judgment in Homburg today, according to ITLOS website and United News of Bangladesh (UNB).

NewImage

The court room of the International Tribunal for the Law of the Sea (ITLOS) in Homburg,  Germany

The International Tribunal for the Law of the Sea (ITLOS) had delivered its judgment over the dispute regarding delimitation of the maritime boundary between Bangladesh and Burma in the Bay of Bengal today in favor of Bangladesh at its main courtroom in Hamburg, Germany at 5:00pm.

“We’ve got more than what we wanted,” Foreign Minister Dipu Moni who is the representative or agent of Bangladesh for the case No.16.

She said, “It is not only a victory, but a tremendous victory.” 

Judge José Luis Jesus, who is presiding over the case at the Tribunal, began reading out the judgment at 5pm (BST) at its main courtroom in Hamburg, Germany according to broadcast live on the ITLOS website.

NewImage

H.E. Mr Tun Shin,the representative or agent of Burma in the court

The tribunal has 21 regular judges from various countries. Bangladesh and Burma have nominated one judge each, taking the total number of judges to 23. Thomas Mensah has been chosen by Bangladesh while Burma has chosen Bernard Oxman.

H.E. Mr Tun Shin, Attorney General, the representative or agent of Burma for the case of No. 16.

The text of the judgment was available shortly after its delivery on the tribunal’s website. The verdict was broadcast live on the ITLOS website and webcast of the judgment will be available in the archives as well.

The ITLOS is an independent judicial body, established by the United Nations Convention on the Law of the Sea. Its verdict is crucial not only for determining the country’s sea boundary, but also for ensuring legitimate right over sea resources, a senior official of the Ministry of Foreign Affairs (MoFA) said.

NewImage

Foreign Minister Dipu Moni, the representative or agent of Bangladesh for the case No.16

The tribunal will decide if Bangladesh would have to limit its access to 130 nautical mile sea area or it would have 200 nautical mile economic exploitation zone (EEZ) and continental shelf that extends up to 400-460 NM (850km) southwards from its coastline.

Continental shelf is the extended perimeter of each continent and associated coastal plain. The dispute with India over a similar issue would be settled by 2014.

The judgment of the tribunal is final and mandatory as there is no opportunity for any party to appeal.

The dispute over the maritime delimitation between the countries began when Bangladesh tried exploring gas reserves in the Bay. While Dhaka demands “equitable” method to settle the dispute, both India and Myanmar push for the “equidistance” principle.

Bangladesh’s interests could be hampered if the delimitation takes place based on equidistance principle, as it might end up forgoing its claim over 17 out of 28 sea blocks.

The verdict put an end to a protracted legal battle of more than two years.

The state-run Petrobangla has planned to offer at least two to three deep water gas-blocks in the forthcoming bidding round with the planned eight shallow water gas-blocks, if the country gets legitimate right over the deep water blocks following the verdict of the international tribunal, said a senior Petrobangla official.

Bangladesh has never explored hydrocarbon in the offshore deep water gas-blocks in the Bay of Bengal.

The Petrobangla in February 2008 offered a total of 28 offshore gas-blocks, of which eight were in shallow depth and 20 in deep water. But it received a lukewarm response due to negative propaganda over the maritime boundary by the neighboring India and Burma.

source

এখানে আপনার মন্তব্য রেখে যান »

Burma News International : Bangladesh wins maritime boundary dispute with Burma


 

 

 

Dhaka, Bangladesh: Bangladesh won a strategic victory in the maritime boundary case with Burma in the International Tribunal for the Law of the Sea (ITLOS) as it delivered the judgment in Homburg today, according to the ITLOS website and United News of Bangladesh (UNB).

The ITLOS had delivered its judgment over the dispute regarding delimitation of the maritime boundary between Bangladesh and Burma in the Bay of Bengal on Wednesday in favor of Bangladesh, at its main courtroom in Hamburg, Germany at 5:00pm.

“We’ve got more than what we wanted,” according to Foreign Minister DipuMoni, who is the representative or agent of Bangladesh for the case. 
“It is not only a victory, but a tremendous victor,” she said.

Bangladesh wanted 107,000 square kilometres in the Bay of Bengal but got 111,000 square kilometres.The International Tribunal for Law of the Sea (ITLOS) in its verdict on March 14 recognised Bangladesh’s claims to a full 200-mile Exclusive Economic Zone (EEZ) in the Bay of Bengal, and to a substantial share of the Outer Continental Shelf (OCS) beyond 200 miles.
The Tribunal also awarded Bangladesh a full 12-mile territorial sea around St. Martin’s Island, overruling Burma’s argument that it should be cut in half.

The verdict, which the judges passed voting 21 to 1, concludes the case initiated by Bangladesh against Myanmar on October 8, 2009, to resolve a longstanding dispute over the maritime boundary. 
The text of the judgment was available shortly after its delivery on the tribunal’s website. The verdict was broadcast live on the ITLOS website and a webcast of the judgment will be available in the archives as well.

The ITLOS is an independent judicial body, established by the United Nations Convention on the Law of the Sea. Its verdict is crucial not only for determining the country’s sea boundary, but also for ensuring legitimate right over sea resources, a senior official of the Ministry of Foreign Affairs (MoFA) said.
The judgment of the tribunal is final and mandatory as there is no opportunity for any party to appeal.
The verdict put an end to a protracted legal battle of more than two years.

source

Friday, Apr 27th


এখানে আপনার মন্তব্য রেখে যান »

ZeeNews: Bangladesh wins maritime suit against Myanmar

NewImage

South Asia

Bangladesh wins maritime suit against Myanmar

Last Updated: Wednesday, March 14, 2012, 23:36

Dhaka: Bangladesh on Wednesday claimed victory in its vexed maritime dispute with Myanmar at a UN tribunal, giving it crucial rights on outer Continental Shelf in the Bay of Bengal. 

“We have achieved more than what we expected,” foreign minister Dipu Moni said, reacting to the verdict given by the International Tribunal for Laws of the Sea (ITLOS) at Humburg in Germany. 

She added that Bangladesh demanded 1,07,000 square kilometers in the Bay of Bengal but the ITLOS verdict awarded us with 1,11,000 sq kilometers. 

“The biggest point was that, India and Myanmar the countries which are in dispute with Bangladesh, earlier wanted to draw the cut off line at 130 nautical miles but now it will be expanded up to 200 nautical miles…,” Moni said. 

She added: “this (verdict) has (also) ensured Bangladesh’s crucial rights on outer Continental Shelf”.

Continental shelf is the extended perimeter of each continent and associated coastal plain. The dispute with India over a similar issue would be settled by 2014, bdnews 24 reported. 

Moni said the ITLOS judgement gave the “full effect on St Martine’s Island” in Bangladesh?s favour, meaning Bangladesh would have full territorial and economic rights surrounding the southeastern island up to 200 nautical miles towards the Continental Shelf in an angle of 215 degrees. 

PTI

First Published: Wednesday, March 14, 2012, 23:36
এখানে আপনার মন্তব্য রেখে যান »

সমুদ্রে সীমানা চিহ্নিত, এখন সম্পদ অনুসন্ধান ও আহরণ জরুরি

NewImage
সাক্ষাৎকার
রিয়ার অ্যাডমিরাল (অব.) মোহাম্মদ খুরশেদ আলম

সাক্ষাৎকার গ্রহণ : শেখ রোকন

সমুদ্রসীমা সংক্রান্ত আন্তর্জাতিক ট্রাইব্যুনালে বাংলাদেশের ঐতিহাসিক বিজয়ে অন্যতম নিয়ামক ভূমিকা রাখার কারণে দেশ-বিদেশে আলোচিত নাম রিয়ার অ্যাডমিরাল মোহাম্মদ খুরশেদ আলম (অব.) পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে অতিরিক্ত সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। সত্তরের দশকের শুরুতে ভারতের কোচিনস্থ ইন্ডিয়ান নেভাল একাডেমি থেকে রাষ্ট্রপতির স্বর্ণপদক লাভ করে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেছেন। ১৯৭৪-৭৬ সালে ভারত থেকেই প্রথম শ্রেণী পেয়ে সমাপ্ত করেছেন নেভাল প্রফেশনাল কোর্স। ইতালিতে প্রথম শ্রেণী পেয়েছেন টেলিকমিউনিকেশন কোর্সে। ভারত ও মিয়ানমারের সঙ্গে সমুদ্রসীমা চিহ্নিত করা সংক্রান্ত আলোচনায় তাকে বাংলাদেশের দলনেতা নির্বাচিত করা হয়। ২০০২ সালে তাকে নৌবাহিনী থেকে অবসর প্রদান করা হয়। ২০০৪ সাল পর্যন্ত তিনি মংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেন। ২০০৩ সাল থেকে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় সাউথইস্টে সমুদ্র বিষয়ক আন্তর্জাতিক আইন নিয়ে অধ্যাপনা করেন। ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক সোসাইটি এবং ন্যাশনাল মেরিটাইম ফাউন্ডেশন, ঢাকার সদস্য খুরশেদ আলম ২০০৪ সালে ‘বাংলাদেশ মেরিটাইম চ্যালেঞ্জেস ইন দি টোয়েন্টি ফার্স্ট সেঞ্চুরি’ শীর্ষক সাড়া জাগানো বই রচনা করেন। এ ছাড়াও তার রয়েছে ইউনাইটেড নেশনস কনভেনশন অন দি ল’ অব দি সি-থ্রি, ল’ অব দি সি অ্যান্ড ইটস ইম্পিক্লেশন ফর বাংলাদেশ, রিজিওনাল মেরিটাইম কো-অপারেশন আন্ডার দি সার্ক, আসিয়ান রিজিওনাল কো-অপারেশনসহ অনেক গুরুত্বপূর্ণ প্রকাশনা

সমকাল : কেমন করে যুক্ত হলেন সমুদ্র জয়ের অভিযানে?
খুরশেদ আলম : সত্তরের দশকের শেষ দিকে ভারতের সঙ্গে তালপট্টি দ্বীপ নিয়ে বিরোধের সময় ১৩০ টনের ছোট একটি গানবোটের কমান্ডে ছিলাম আমি। আর প্রতিপক্ষের ছিল ১১০০ টনের চারটি যুদ্ধজাহাজ, যার প্রতিটিতে ৪-৫টি কামান। আমাদের ভরসা কেবল একটি কামান। জুনিয়র অফিসার হিসেবে সেখানে এক মাস অবস্থানকালে বুঝতে পারি, প্রধানত অর্থনৈতিক কারণে নৌবাহিনীতে তাদের সমকক্ষতা অর্জন করা দুরূহ হবে। সাগরের দ্বীপে তাদের দখলও সরানো যাবে না। শক্তিবলে নয়, বরং আন্তর্জাতিক আইনে স্বীকৃত পন্থায় ভারত ও মিয়ানমারের কাছ থেকে ন্যায্য অধিকার আদায়ের পথ অনুসন্ধানে সে সময় থেকেই আমি লেগে পড়ি। ১৯৭৪ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতীয় সংসদে টেরিটরিয়াল ওয়াটার্স অ্যান্ড মেরিটাইম জোনস অ্যাক্ট পাস করেন। এ যুগান্তকারী ও দূরদর্শী আইনে বঙ্গোপসাগর এবং এর সম্পদের ওপর ১২ নটিক্যাল মাইল টেরিটরিয়াল সি, ২০০ কিলোমিটার এক্সক্লুসিভ অর্থনৈতিক এলাকা এবং মহীসোপানে বাংলাদেশের অধিকার ঘোষণা করা হয়। ভারত ও মিয়ানমার স্বাধীনতা আগে পেলেও তাদের সাগর-সীমানা ধরে এ দাবি উত্থাপনের কাজটি করেছে আরও পরে। বাংলাদেশের রাজনৈতিক নেতৃত্বের এ উপলব্ধি আমাকে বঙ্গোপসাগর নিয়ে কাজ করতে আরও অনুপ্রেরণা জোগায়। 
সমকাল : জাতিসংঘে আমাদের সমুদ্রসীমার দাবি তো পেশ হয়েছে অনেক পরে। বিলম্ব হলো কীভাবে? 
খুরশেদ আলম : ১৯৮২ সালে সমুদ্র আইন বিষয়ক নতুন জাতিসংঘ কনভেনশনে বাংলাদেশ স্বাক্ষর করে। ওই অনুষ্ঠানে দু’জন রাষ্ট্রদূত, নৌবাহিনী প্রধানসহ আমি নিজেও ছিলাম। কিন্তু পরবর্তী সরকারগুলো কেন যেন সেটা অনুস্বাক্ষর করেনি। আওয়ামী লীগ সরকারের গত মেয়াদে, বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বাধীন তৎকালীন সরকার মন্ত্রিসভার শেষ বৈঠকে রেটিফাই করে। ১২ জুলাই ২০০১। তারপর যে পরিস্থিতি উদ্ভব হয় তা হচ্ছে, কনভেনশনে বলা আছে, ২০০ নটিক্যাল মাইলের বাইরে যদি মহীসোপান চাই, রেটিফিকেশন-পরবর্তী ১০ বছরের মধ্যে মহীসোপানের দাবি তথ্য-উপাত্ত, যুক্তিসহকারে জাতিসংঘে পেশ করতে হবে। ২০০৯ সালের এপ্রিল মাসে আমি যখন দায়িত্ব নিলাম, ততদিনে নয় বছর শেষ হয়ে গেছে। ওই এক-দেড় বছরের মধ্যে সব তথ্য-উপাত্ত, নথিপত্র প্রস্তুত করতে হবে এবং প্রমাণ করতে হবে যে, বাংলাদেশের উপকূল থেকে সমুদ্রের তলদেশে একই ধরনের সেডিমেন্ট অব্যাহত রয়েছে। এটা প্রমাণ করার জন্য সিসমিক ও বেজমেন্ট সার্ভে করা দরকার। আগে আমাদের দেশে কখনও সিসমিক সার্ভে হয়নি। উপযুক্ত জাহাজও নেই, তা ভাড়া করতে হবে। আমি অনেকের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করে দেখলাম এ জন্য প্রায় ৮০ কোটি টাকা লাগে। মাননীয় মন্ত্রী প্রস্তাবটি নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে যান। তখন বাজেট পাস হয়ে গেছে; কিন্তু প্রধানমন্ত্রী বিশেষ ব্যবস্থায় ওই অর্থের ব্যবস্থা করলেন। বরাদ্দ পেয়ে সঙ্গে সঙ্গে ব্যবস্থা নিলাম। কারণ সার্ভের জন্য কেবল একটি সিজন ছিল_ ২০০৯ সালের ডিসেম্বর থেকে মার্চ ২০১০। এর মধ্যে করতে না পারলে জাতিসংঘে যথাসময়ে দাবি পেশ করা যাবে না। আমরা ডাচ সরকারকে কাজটি করে দেওয়ার অনুরোধ জানালাম। তাদের একটি জাহাজ তখন প্রশান্ত মহাসাগর থেকে ফিরছিল। ২০১০ সালের মার্চে সার্ভে সম্পন্ন হয়। আমরা প্রমাণ করলাম বাংলাদেশের মাটি ও বঙ্গোপসাগরের বিস্তীর্ণ এলাকার তলদেশ একই উপাদানে গঠিত। এ সময় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নৌবাহিনীর জন্য বিএনএস অনুসন্ধান নামে একটি জরিপ জাহাজ কিনে দেন। পরে আমরা সব তথ্য-উপাত্ত জাতিসংঘের একজন কমিশনারকে দিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করিয়ে নিলাম। পরে ২০১১ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি আমরা দাবিনামা পেশ করি।
সমকাল : বিষয়টি আন্তর্জাতিক সালিশি আদালতে গেল কোন প্রেক্ষাপটে?
খুরশেদ আলম : আপনাদের মনে আছে, সরকার সমুদ্রবক্ষে ২৮টি তেল-গ্যাস অনুসন্ধান ব্লক করেছিল। সেগুলোর টেন্ডারও আহ্বান করা হলো। তখন তত্ত্বাবধায়ক সরকার। কনোকোফিলিপস বেশ কিছু ব্লক পেয়েছিল। কিন্তু মিয়ানমার বলল এর ১৭টি ব্লক তাদের সীমানায়। আর ভারত দাবি করল ১০টি। আমাদের থাকল মাত্র একটি ব্লক। আসলে আমরা সমুদ্রসীমা নির্ধারণ না করেই ব্লক ঘোষণা করেছিলাম। এটা আন্তর্জাতিক আইনসম্মত কাজ হয়নি। মিয়ানমার ও ভারতের দাবি অনুযায়ী আমাদের সমুদ্রসীমা ১৩০ মাইলের মধ্যে আটকে গেল। ইতিমধ্যে বর্তমান সরকার দেশ পরিচালনার দায়িত্ব গ্রহণ করে। সরকারের সর্বোচ্চ পর্যায়ে তখন বিষয়টি চিন্তা-ভাবনা হলো। আমাকে বলা হলো তেল-গ্যাস ও মৎস্যসম্পদ সমৃদ্ধ এত বড় এলাকা দ্বিপক্ষীয় আলোচনা করে সুরাহা হবে না। দ্বিপক্ষীয় আলোচনার অভিজ্ঞতাও সুখকর নয়। বাংলাদেশের জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে চাইলে আমাদের আন্তর্জাতিক আদালতেই যেতে হবে। আপনারা প্রস্তুতি নিন। আমরা তখন আরবিট্রেশনে যাওয়ার প্রস্তুতি নিতে থাকলাম। 
সমকাল : কতদিন ধরে প্রস্তুতি নিয়েছেন? বিষয়টি তো কড়া গোপনীয়তার মধ্যে ছিল।
খুরশেদ আলম : আমাদের লেগেছে চার-পাঁচ মাস। হ্যাঁ, কঠোর গোপনীয়তা অবলম্বন করেছি আমরা। অনেকে অভিযোগ করে থাকেন, বাংলাদেশে কোনো কিছু গোপন থাকে না। আশঙ্কা ছিল যে আদালতে যাওয়ার বিষয়টিও সাধারণ মানুষ জেনে যাবে। আমরা সেটা হতে দিইনি। বিষয়টি যদি ভারত বা মিয়ানমার জানতে পারত তাহলে আন্তর্জাতিক আদালত থেকে নিজেদের প্রত্যাহার করে নেওয়ার আশঙ্কা ছিল। এমন নজির রয়েছে। তাতে করে দ্বিপক্ষীয় আলোচনা ছাড়া আমাদের আর উপায় থাকত না। ২০০৯ সালের অক্টোবরে হেগে অবস্থিত সমুদ্রসীমা বিষয়ক স্থায়ী আদালতে আমরা ভারত ও মিয়ানমারের সঙ্গে সমুদ্রসীমার বিরোধ নিয়ে অভিযোগ দায়ের করি। 
সমকাল : ভারত ও মিয়ানমার আমাদের এসব প্রস্তুতির ব্যাপারে কোন পর্যায়ে এসে জানতে পারে?
খুরশেদ আলম : প্রথম দিকে জানত না। একেবারে শেষ মুহূর্তে আমরা তাদের জানিয়েছি। তারা বাধা দেওয়ারও চেষ্টা করেছে; কিন্তু কাজ হয়নি। ভারত মহীসোপানের দাবি জানিয়েছে ২০০৯ সালে। মিয়ানমার তারও আগে, ২০০৮ সালে। আমরা যদি ২০০১-০৭ সালের মধ্যে দাবি জানাতাম, তাহলে সিদ্ধান্ত এতদিনে পেয়ে যেতাম। দুর্ভাগ্যজনকভাবে সে সময় সরকার জরিপও চালায়নি।
সমকাল : আমরা দেখলাম, বাংলাদেশ-মিয়ানমার মামলা হেগের আদালত থেকে জার্মানির হামবুর্গের আদালতে স্থানান্তর হয়েছিল বোধহয় মিয়ানমারের প্রস্তাবে। তারা কেন এমন সিদ্ধান্ত নিলেন? আপনার কী মনে হয়?
খুরশেদ আলম : হ্যাঁ, প্রস্তাবটা মিয়ানমারের দিক থেকেই ছিল। তারাই ইটলসে যাওয়ার কথা বলেছিল। আমাদের কোনো আপত্তি ছিল না। জাতিসংঘ স্থায়ী আদালতে যে কোনো পক্ষই এককভাবে যেতে পারে। কিন্তু ইটলসে যেতে হলে উভয় পক্ষের সম্মতি প্রয়োজন হয়। আর মিয়ানমারের দিক থেকে বোধহয় হিসাব ছিল যে হেগের আদালতে তারা সুবিধা করতে পারবে না। কারণ তারা ছিল তখনও একঘরে। সেখানে মাত্র পাঁচজন বিচারপতি। আর হামবুর্গে ২২-২৩ জন বিচারপতি। সেখানে কারও পক্ষে কারসাজি করা কঠিন হবে।
সমকাল : রায় দেওয়ার ক্ষেত্রে ট্রাইব্যুনাল কোন কোন দিক বিবেচনা করেছেন?
খুরশেদ আলম : ট্রাইব্যুনাল তিনটি পর্যায়ে বিবেচনা করেছেন। প্রথম হচ্ছে টেরিটোরিয়াল সি। ১২ নটিক্যাল মাইল পর্যন্ত টেরিটোরিয়াল সির সীমানা নির্ধারণের ব্যাপারে ১৯৭৪ সালের নভেম্বরে বাংলাদেশের সঙ্গে মিয়ানমারের ঐকমত্য হয়েছিল। পরে বিষয়টি ফাইলে পড়ে ছিল, পরবর্তী সরকারগুলো এটাকে আর চুক্তিতে পরিণত করেনি। ফলে আদালতে গিয়ে মিয়ানমার বলল, এটা তো সম্মত কার্যবিবরণী মাত্র। তারা এটা আর মানেন না। ইতিমধ্যে জাতিসংঘেও নতুন কনভেনশন হয়েছে। মিয়ানমার চেয়েছিল ৬ মাইল হোক। আমরা ১২ মাইল অথবা ১৯৭৪ সালের ঐকমত্য বলবৎ চেয়েছি। দু’পক্ষই যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেছে। শেষ পর্যন্ত আদালত ‘৭৪ সালের দলিল না মানলেও সমদূরত্ব নীতিতে ১২ মাইল টেরিটোরিয়াল সি নির্ধারণ করে দেয়। সেটা অবশ্য ‘৭৪ সালের সীমানারই অনুরূপ। বরং আমাদের কিছুটা লাভই হয়েছে।
আদালতের দ্বিতীয় বিবেচনা ছিল এক্সক্লুসিভ ইকোনমিক জোন। মিয়ানমার বলেছিল, তোমাদের আঁকাবাঁকা উপকূল রেখার জন্য তো আমরা দায়ী নই। ফলে সমদূরত্ব পদ্ধতিতে সীমানা নির্ধারণ হতে হবে। আমরা বলেছি, উপকূল আঁকাবাঁকার জন্য তো আমরাও দায়ী নই। প্রকৃতির ব্যাপার। আদালতকে বাংলাদেশের প্রতি ন্যায়বিচার করতে হবে। জার্মানি নিজেই তো ডেনমার্কের বিরুদ্ধে মামলায় ইকুইটির কথা বলেছে। আদালত আমাদের যুক্তি মেনেছেন। তৃতীয় বিষয় ছিল মহীসোপান। এটা একটু জটিল। কারণ আমাদের ২০০ মাইল এক্সক্লুসিভ ইকোনমিক জোন শেষ হওয়ার পর যেখানে মহীসোপান শুরু হবে, সেখানে মিয়ানমারের এক্সক্লুসিভ ইকোনমিক জোন ঢুকে গেছে। সামান্য জায়গা, ৪০-৫০ বর্গকিলোমিটার। আবার মিয়ানমার বলল, মহীসোপানের বিষয়টি এখন নিষ্পত্তি হবে না। কারণ বাংলাদেশ মাত্র ২০১১ সালে তাদের দাবি জাতিসংঘে পেশ করেছে। আদালতও বললেন, এখন এটার সমাধান দেওয়া যাবে না। আমরা রবীন্দ্রনাথের কবিতা উদ্ধৃত করে বললাম, বিধাতার রাত-দিন নেই, তার অনেক সময়। কিন্তু আমরা মরণশীল মানুষ। আমাদের তো কাজ শেষ করতে হবে। সমাধান একটা দিতেই হবে। তখন আদালত মহীসোপানের সীমানার দিক নির্ধারণ করে দিয়েছেন। ভারতের সঙ্গে নিষ্পত্তির পর সেটা চূড়ান্ত হবে। মিয়ানমারের ইকোনমিক জোনের যে অংশ আমাদের মহীসোপানে ঢুকে গেছে, সেখানকার তলদেশ হবে বাংলাদেশের আর পানি হবে মিয়ানমারের।
সমকাল : মিয়ানমার-বাংলাদেশ সমুদ্রসীমা অংশে এখন আমাদের কী করার আছে?
খুরশেদ আলম : জ্বালানি মন্ত্রণালয়, মৎস্যসম্পদ মন্ত্রণালয়, প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় সেটা ঠিক করবে। নৌ-টহল বৃদ্ধি করা হবে কি-না ঠিক করবে। সমুদ্রে শক্তি বাড়াতে হবে। কারণ আমাদের দু’পাশেই শক্তিশালী দেশ রয়েছে। সম্পদ কীভাবে কাজে লাগাতে পারি, সে ব্যাপারে সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনা নিতে হবে। জ্বালানি ও মাছ ছাড়াও পলিমেটালিক সালফাইডসহ কপার, ম্যাগনেশিয়াম, নিকেল সংগ্রহ করা যাবে। দুষ্প্রাপ্য ও মূল্যবান খনিজ পদার্থ আহরণ নিয়ে ভাবতে হবে। 
সমকাল : কেউ কেউ আশঙ্কা করছেন যে মিয়ানমার এই রায় বাস্তবায়নে সহযোগিতা না-ও করতে পারে? এটা কতটা সত্য?
খুরশেদ আলম : না, মিয়ানমার মেনে নিয়েছে। সরকারিভাবে জানিয়েছে। আসলে মেনে নেওয়া ছাড়া কোনো অপশন নেই। আপিলের সুযোগ নেই। আমেরিকা ও ইউরোপের অনেক দেশকে আদালতে যেতে হয়েছে এবং রায় মেনে নিতে হয়েছে।
সমকাল : ভারতের সঙ্গে আমাদের বিরোধের বিষয়টি নিষ্পত্তি হবে হেগের আদালতে। হামবুর্গের আদালতের সঙ্গে এর কি কোনো পার্থক্য রয়েছে।
খুরশেদ আলম : কিছু পার্থক্য রয়েছে। হামবুর্গে ২৩ জন বিচারক, হেগে ৫ জন। এখানে বিচারকদের বেতন-ভাতা দেয় জাতিসংঘ। সেখানে দিতে হবে বাদী ও বিবাদীকে। জুরিসডিকশনের কোনো পার্থক্য নেই। তবে হেগের বিচার প্রক্রিয়া হামবুর্গের চেয়ে দীর্ঘতর। ইটলসে ছয় মাস লাগলে, সেখানে এক বছর লেগে যায়। 
সমকাল : ভারতের সঙ্গে আইনি লড়াইয়ের জন্য আমাদের প্রস্তুতি কেমন?
খুরশেদ আলম : আমরা ইতিমধ্যে সব তথ্য-উপাত্ত, যুক্তি আদালতে পেশ করেছি। ভারত তাদের পাল্টা যুক্তি দেবে এ বছর। আমাদের প্রস্তুতিতে ঘাটতি নেই। তারপরও সমুদ্র আইন নিয়ে যারা চিন্তা-ভাবনা করেন, তাদের সবাইকে আমরা অনুরোধ জানাব আমাদের পরামর্শ দেওয়ার জন্য। তাতে করে আমাদের আইনি লড়াই আরও শক্তিশালী হবে। 
সমকাল : হামবুর্গের আদালতের রায় কি হেগের আদালতে বাংলাদেশের জন্য ইতিবাচক পরিস্থিতি তৈরি করবে না? কারণ বিচার কাজের ক্ষেত্রে তো নজির অনুসন্ধান করা হয়।
খুরশেদ আলম : আমরা ইতিবাচক রায়ই আশা করি। এই আদালতেরই তিনজন বিচারক সেখানে রয়েছেন। আমরা আশা করছি, বাংলাদেশ-ভারত সমুদ্রসীমাও ইকুইটির ভিত্তিতে নির্ধারিত হবে।
সমকাল : মিয়ানমারের সঙ্গে সমুদ্রসীমার বিরোধ নিষ্পত্তির পর ভারত তো এখন দ্বিপক্ষীয় আলোচনার প্রস্তাব দিচ্ছে।
খুরশেদ আলম : এ ব্যাপারে সোমবার মাননীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী পরিষ্কার বলে দিয়েছেন যে, আদালত থেকে মামলা প্রত্যাহারের প্রশ্নই আসে না। তবে আলোচনার জন্য আমাদের দরজা সবসময় খোলা।
সমকাল : আপনাকে এবং আপনার সহকর্মীদের অভিনন্দন জানাই। আমাদের সময় দেওয়ার জন্য ধন্যবাদ।
খুরশেদ আলম : ধন্যবাদ, সমকালের জন্যও শুভেচ্ছা রইল।

এখানে আপনার মন্তব্য রেখে যান »

Burma, Bangladesh maritime dispute ends

Burma, Bangladesh maritime dispute ends

Print
(Mizzima) – The dispute over a resource-rich area of the sea claimed by both Burma and Bangladesh was settled by a United Nations court on Wednesday.

Transocean International’s semi-submersible drilling rig, the Actinia.

Transocean International’s semi-submersible drilling rig, the Actinia.

The International Tribunal for the Law of the Sea in German fixed new boundaries that were seen as a compromise to a decades-old dispute. 

“Both sides won something and lost something,” said the German judge on the panel, Ruediger Wolfrum, according to the German news agency, DPA.

A Bangladesh official said it was a “victory for both sides,” and Dhaka and Burma could now begin to exploit the area for gas and oil. The court’s ruling cannot be appealed.

Bangladesh Foreign Minister Dipu Moni said Bangladesh claimed 66,486 square miles, and received an 68,972 square mile area in the Bay of Bengal and they have got all they wanted. St Martin’s island is included in Bangladesh’s maritime boundary, and Burma’s must relinquish its claim to the island.

The decades-long dispute had led to tense stand-offs involving war ships in 2008 when Bangladesh accused Burma of exploring for gas in disputed waters.

Burma has discovered huge reserves of natural gas in the Bay of Bengal and has said it plans to explore further in the area. Dhaka hopes to resolve a similar maritime border dispute with India in 2014.

On November 2, 2008, the Bangladeshi government announced that the previous day its naval vessel the BNS Nirvoy detected the Burmese navy escorting four drilling ships and a tug pulling the 100-metre-long drill rig Transocean Legend in waters claimed by Dhaka. Dhaka’s accusation that Burma had violated its sovereign maritime territory was the first sign of a serious diplomatic spat that followed with a costly and heated naval stand off between two of the world’s poorest nations.  

Two days later, the Daewoo Corporation, Transocean and the Burmese regime withdrew their vessels.  It was reported that the Korean and Chinese governments had intervened to de-escalate the situation. China is set to be the destination of most of the gas Daewoo and its partners extract from off Burma’s Arakan coast.

A Daewoo International report issued in March 2010 revealed that the firm increased its stake in the contested block after its three partners pulled out. The report did not mention any exploration activity in the disputed block since the standoff in November 2008.

Burma was represented by Attorney General Dr. Tun Shin; Professor Alain Pellet; Sir Michael Wood; Professor Mathias Forteau; Daniel Muller; Coalter Lathrop; Hla Myo New (Deputy Director General, Consular and Legal Affairs Department, Ministry of Foreign Affairs, Burma); and Kyaw San (Deputy Director General, Attorney General’s Office of Burma). Bangladesh was represented by 10 representatives including Foreign Minister Dipu Moni.

এখানে আপনার মন্তব্য রেখে যান »

উন্মুক্ত হলো সমুদ্র সম্পদের বিশাল ভাণ্ডার

উন্মুক্ত হলো সমুদ্র সম্পদের বিশাল ভাণ্ডার নিজস্ব প্রতিবেদকহামবুর্গের আন্তর্জাতিক আদালতে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে সমুদ্রসীমা নিয়ে বিরোধ নিষ্পত্তির মধ্য দিয়ে গতকাল বাংলাদেশের জন্য উন্মুক্ত হলো সমুদ্রসম্পদের এক বিশাল ভাণ্ডার। এর ফলে বাংলাদেশ সমুদ্রে ২০০ নটিক্যাল মাইল পর্যন্ত নিবিড় অর্থনৈতিক অঞ্চলের একচ্ছত্র অধিকার পেল। এর বাইরেও মহীসোপানের উল্লেখযোগ্য অংশে সম্পদ আহরণের অধিকার প্রতিষ্ঠিত হলো। মিয়ানমারের সঙ্গে পূর্বদিকের সীমানা বিরোধ মিটে যাওয়ায় বাংলাদেশ তেল-গ্যাস অনুসন্ধানে দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা নিতে পারবে। এ ছাড়া অন্যান্য মূল্যবান খনিজ সম্পদ আহরণের সম্ভাবনাও রয়েছে।
নৌবাহিনীতে কাজ করার সময় থেকেই বাংলাদেশের সমুদ্রসীমা ও আন্তর্জাতিক সমুদ্র আইন নিয়ে গবেষণা করেছেন রিয়ার অ্যাডমিরাল (অব.) খুরশেদ আলম। বর্তমানে তিনি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব হিসেবে আনক্লজ অনুবিভাগের দায়িত্বে আছেন। চূড়ান্ত রায় শোনার জন্য হামবুর্গ যাওয়ার আগে গত সপ্তাহে কালের কণ্ঠের কাছে জোরালো আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেছিলেন, ‘আমরা আশা করছি ন্যায্যতার ভিত্তিতেই সমাধান পাব। ভৌগোলিক কারণেই সমদূরত্বের তত্ত্ব আমাদের ন্যায্যতা নিশ্চিত করে না। আমরা এ বিষয়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের বিরোধ নিষ্পত্তির দৃষ্টান্ত তুলে ধরেছি।’ আন্তর্জাতিক দৃষ্টান্ত তুলে ধরে তিনি বলেছিলেন, ‘মিয়ানমারের সঙ্গে আমাদের (বাংলাদেশের) ভৌগোলিক অবস্থানের প্রসঙ্গ উল্লেখ করে ১৯৬৭ সালে ডেনমার্ক ও নেদারল্যান্ডসের সঙ্গে ন্যায্যতার ভিত্তিতে সমুদ্রবিরোধ নিষ্পত্তি করেছে জার্মানি। তাহলে আমরা কেন পাব না?’
সমদূরত্ব নয়, ন্যায্যতার ভিত্তিতে সমুদ্র-সীমানা মিটিয়েছে গিনি-গিনি বিসাউ, ডমিনিকা, ব্রুনাই-মালয়েশিয়াসহ আরো অনেক দেশ। তারা সমুদ্রের ভেতর ২০০ নটিক্যাল মাইলের অধিকার পেয়েছে। তাঁর দৃঢ় বিশ্বাস ছিল, বাংলাদেশও তার ন্যায্য অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে পারবে।
গতকাল আন্তর্জাতিক আদালতের রায় বাংলাদেশের পক্ষেই এসেছে। হামবুর্গ থেকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডা. দীপু মনি গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, বাংলাদেশ যা চেয়েছিল তার চেয়েও বেশি পেয়েছে।
বঙ্গোপসাগরে ন্যায্যতার ভিত্তিতে দাবি প্রতিষ্ঠিত হলে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক লাভের ক্ষেত্রগুলো আগেই চিহ্নিত করে রেখেছিলেন খুরশেদ আলম। তাঁর মতে, বাংলাদেশের সমুদ্রসীমা তীর থেকে ২০০ নটিক্যাল মাইলের পরও মহীসোপানের আরো ২৬০ নটিক্যাল মাইল পর্যন্ত বিস্তৃত হওয়ার সুযোগ রয়েছে। এ দাবি নিয়েই হামবুর্গের ইন্টারন্যাশনাল ট্রাইব্যুনাল ফর ল অব দ্য সি’তে গেছে বাংলাদেশ। এ দাবি প্রতিষ্ঠিত হলে এক বিস্তৃত বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল (এঙ্ক্লুসিভ ইকনোমিক জোন) ও মহীসোপানের (কন্টিনেন্টাল শেল্ফ) একচ্ছত্র অধিকার পাবে বাংলাদেশ। উন্মুক্ত হবে সমুদ্রসম্পদের এক বিপুল সম্ভাবনার দুয়ার। তেল-গ্যাসসহ মূল্যবান খনিজ সম্পদ আহরণের জন্য বাংলাদেশ নিতে পারবে দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা।
খুরশেদ আলম জানান, বিপুল মৎস্যসম্পদ, তেল-গ্যাস ছাড়াও বঙ্গোপসাগরের তলদেশে রয়েছে কোবাল্ট সালফাইড, নুডল্স, যা থেকে কোবাল্ট, নিকেল, ম্যাগনেসিয়াম, তামার মতো দামি খনিজ পদার্থ আহরণ করা সম্ভব। পাপুয়া নিউগিনিসহ বেশ কয়েকটি দেশে নুডল্স থেকে কিছু পরিমাণ স্বর্ণও পাওয়া যাচ্ছে। সমুদ্রসীমা নির্ধারিত না থাকায় বহুজাতিক খনি উন্নয়ন (মাইন ডেভেলপমেন্ট) কম্পানিগুলো অনুসন্ধানকাজে আগ্রহী হচ্ছে না। মিয়ানমারের সঙ্গে পূর্বদিকের সীমা নির্ধারিত হয়ে গেলে বাংলাদেশ এক ধাপ এগিয়ে থাকবে। দুই বছর পর ভারতের সঙ্গে পশ্চিম দিকের সীমা ঠিক হয়ে গেলে বাংলাদেশ সমুদ্রসম্পদ আহরণ ও ব্যবহারে দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা নিতে পারবে। তখন বিদেশি কম্পানিগুলোও নির্দ্বিধায় এগিয়ে আসবে।
খুরশেদ আলম বলেন, সমুদ্রসীমা রক্ষা ও সম্পদ আহরণের জন্য বাংলাদেশে সমুদ্রবিজ্ঞান অধ্যয়ন জরুরি। সরকারি-বেসরকারি মিলিয়ে প্রায় ৬০টি বিশ্ববিদ্যালয়ের একটিতেও ওশেনোলজি পড়ানো হয় না। ফলে আমাদের এখানে সমুদ্রবিদ্যায় কোনো লোকবল নেই। অথচ ভারতে অন্তত ২০টি বিশ্ববিদ্যালয়ে এ বিষয়টি পড়ানো হয়।
তবে ঢাকা ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সমুদ্রবিজ্ঞানের চার বছর মেয়াদি কোর্স চালু করতে রাজি হয়েছে। আগামী শিক্ষাবর্ষ থেকে শিক্ষার্থী ভর্তি শুরু হওয়ার কথা। এর ফলে আগামী কয়েক বছরে দেশে সমুদ্রতত্ত্বের কিছু জনবল তৈরি হবে বলে আশা করছেন খুরশেদ আলম।
ভারত ও মিয়ানমারের দাবি, সমদূরত্বের ভিত্তিতে সীমা নির্ধারণ হোক। এ হিসাবে বাংলাদেশ পেত মাত্র ১৩০ নটিক্যাল মাইল। সমুদ্রে যে ২৮টি গ্যাস ব্লকের রূপরেখা রয়েছে, তার ১৭টিই দাবি করে মিয়নমার, ১০টির দাবি ভারতের। বাংলাদেশের হাতে থাকে কেবল একটি, যেখানে এখন কনোকো-ফিলিপ্স অনুসন্ধান চালাচ্ছে। সীমানা নির্ধারণের আগে এ ধরনের গ্যাস ব্লকের পক্ষে দাবি জোরালো হয় না বলে জানিয়েছিলেন খুরশেদ আলম। মিয়ানমারের সঙ্গে বিরোধ নিষ্পত্তি হলে বাংলাদেশের দাবি জোরালো হবে বলে তিনি মন্তব্য করেছিলেন।
প্রতিবেশী ভারত ও মিয়ানমারের সঙ্গে বঙ্গোপসাগরে সীমা নির্ধারণের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল স্বাধীনতার পরপরই। কিন্তু পরবর্তী সরকারগুলোর তাগিদ না থাকায় সেই উদ্যোগ গত চার দশকেও সম্পন্ন হয়নি। এ নিস্পৃহতার সুযোগে প্রতিবেশী দেশগুলো আন্তর্জাতিক কর্তৃপক্ষের কাছে তাদের দাবি প্রতিষ্ঠার প্রয়াস পেয়েছে। এতে ন্যায্য সমুদ্রসীমা থেকে বাংলাদেশের বঞ্চিত হওয়ারও আশঙ্কা তৈরি হয়েছিল। শেষ পর্যন্ত গত বছর বাংলাদেশ আনুষ্ঠানিকভাবে আন্তর্জাতিক কর্তৃপক্ষের কাছে তার যৌক্তিক জলসীমার দাবি পেশ করেছে।
সমুদ্রসীমা নির্ধারণের প্রক্রিয়াটি শুরু হয়েছিল ১৯৭৪ সালে। স্বাধীনতার তিন বছরের মাথায় সংসদে ‘টেরিটোরিয়াল ওয়াটার্স অ্যান্ড মেরিটাইম জোন্স অ্যাক্ট’ আইন পাস করেছিল তৎকালীন বঙ্গবন্ধু সরকার। এ ধরনের আইনের কথা তখন ভারত বা মিয়ানমার চিন্তাও করেনি। দুই প্রতিবেশী দেশ ভারত ও মিয়ানমারের সঙ্গে সমুদ্রসীমা নির্ধারণ নিয়ে বাংলাদেশের কূটনৈতিক আলোচনাও শুরু হয়েছিল তখন থেকে। কিন্তু স্বাধীনতা-পরবর্তী সরকার যে প্রজ্ঞা ও দূরদর্শিতা নিয়ে সমুদ্রসীমা নিষ্পত্তির উদ্যোগ নিয়েছিল, পরবর্তী সরকারগুলো তার ধারাবাহিকতা রক্ষা করেনি। ফলে সংশ্লিষ্ট প্রতিবেশীদের চেয়ে অনেক আগে উদ্যোগ নিয়েও পিছিয়ে পড়েছে বাংলাদেশ। ইতিমধ্যে মিয়ানমার ও ভারত আন্তর্জাতিক অঙ্গনে তাদের দাবি প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে অনেকখানি এগিয়ে গেছে। তারা নিজেদের মধ্যেও আন্দামান সাগরে সীমা নির্ধারণের সমঝোতায় পেঁৗছেছে।
১৯৭৪-এর পর থেকে প্রায় দুই দশক পর্যন্ত সমুদ্রসীমা নির্ধারণের বিষয়টি নিয়ে বাংলাদেশ কার্যত নিষ্ক্রিয় ছিল। মাঝখানে ১৯৮২ সালে জাতিসংঘ প্রণীত আন্তর্জাতিক সমুদ্র আইনে স্বাক্ষর করেছিল বাংলাদেশ। নিয়ম অনুযায়ী দেশে সেটিকে অনুস্বাক্ষর (রেটিফাই) করা দরকার থাকলেও দীর্ঘ ১৯ বছরে তা হয়নি। সে কাজটি করা হয়েছে ২০০১ সালে। এর ১০ বছরের মধ্যে মহীসোপানের দাবি জাতিসংঘের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে আনুষ্ঠানিকভাবে পেশ করার কথা। সময়সীমা ছিল ২০১১ সাল। তার আগে ভূতাত্তি্বক (সেইসমিক) ও বেথিমেট্রিক জরিপ করার বাধ্যবাধকতা ছিল। ২০১০ সালে এ দুটি জরিপ শেষ করে সময়সীমা পার হওয়ার আট মাস আগেই বাংলাদেশ যথাযথ কর্তৃপক্ষের কাছে তার দাবি পেশ করেছে। খুরশেদ আলম মনে করেন, ন্যায্যতার ভিত্তিতে বিবেচনা করলে বাংলাদেশ সমুদ্রতীর থেকে বঙ্গোপসাগরের মধ্যে ৪৬০ নটিক্যাল মাইল (৮৫২ কি. মি.) পর্যন্ত পাওয়ার দাবি রাখে। সমুদ্রের এ এলাকা বাংলাদেশের মূল ভূখণ্ড থেকেও আয়তনে বড়। এ দাবি প্রতিষ্ঠিত হলে বাংলাদেশ বিশাল সমুদ্রসম্পদের অধিকার পাবে। পার্শ্ববর্তী দুটি দেশের (পূর্বে মিয়ানমার ও পশ্চিমে ভারত) সঙ্গে চার দশকেও সমুদ্রসীমা সুনির্দিষ্ট না হওয়ায় বাংলাদেশ সমুদ্রের তলদেশে তেল-গ্যাসসহ অন্যান্য খনিজ সম্পদ আহরণের কার্যকর উদ্যোগ গ্রহণ করতে পারছে না।


সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি : মোস্তফা কামাল মহীউদ্দীন, সম্পাদক : ইমদাদুল হক মিলন, ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের পক্ষে মোস্তফা কামাল মহীউদ্দীন কর্তৃক প্লট-৩৭১/এ, ব্লক-ডি, বসুন্ধরা, বারিধারা থেকে প্রকাশিত এবং প্লট-সি/৫২, ব্লক-কে, বসুন্ধরা, খিলক্ষেত, বাড্ডা, ঢাকা-১২২৯ থেকে মুদ্রিত।
বার্তা ও সম্পাদকীয় বিভাগ : বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা, প্লট-৩৭১/এ, ব্লক-ডি, বারিধারা, ঢাকা-১২২৯। পিএবিএক্স : ০২৮৪০২৩৭২-৭৫, ফ্যাক্স : ৮৪০২৩৬৮-৯, বিজ্ঞাপন ফোন : ৮১৫৮০১২, ৮৪০২০৪৮, বিজ্ঞাপন ফ্যাক্স : ৮১৫৮৮৬২, ৮৪০২০৪৭। E-mail : info@kalerkantho.com

সুত্র

এখানে আপনার মন্তব্য রেখে যান »