সফল বাংলাদেশ

সফল বাংলাদেশ: সব সফলতার খবর আলোচনা হোক গর্বের সাথে

বিশ্বের সাতটি সফল দেশের মধ্যে বাংলাদেশ একটি

বাংলাদেশ নিয়ে অনেক খারাপ সংবাদের ভিড়ে এবার একটা ভাল খবর দিল ‘সেভ দ্য চিলড্রেন’৷ শিশু মৃত্যুর হার কমাতে বাংলাদেশ বেশ সাফল্য দেখিয়েছে৷

‘এ ফেয়ার চান্স অ্যাট লাইফ’ – এটা হলো শিশুদের নিয়ে কাজ করা আন্তর্জাতিক সংস্থা ‘সেভ দ্য চিলড্রেন’এর প্রতিবেদনের শিরোনাম৷ সেখানে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ মাত্র সাতটি দেশের মধ্যে একটি, যারা শিশু মৃত্যুর হার উল্লেখযোগ্য হারে কমাতে সক্ষম হয়েছে৷ শুধু তাই নয়, ধনী-গরীব নির্বিশেষে এই হার ছিল সমান৷
ঐ রিপোর্ট বলছে, এমন অনেক দেশ আছে যারা কেবল ধনীদের মধ্যে শিশু মৃত্যুর হার কমাতে পেরেছে৷ কিন্তু বাংলাদেশ এই ক্ষেত্রে ব্যতিক্রম৷ সেখানে সব শ্রেণিরই শিশু মৃত্যুর হার কমেছে৷ ১৯৯৩ থেকে ২০০৭ সাল পর্যন্ত প্রতি বছর এই হার ছিল শতকরা ৫.৩ শতাংশ৷
কীভাবে সম্ভব হলো এটা! এ ব্যাপারে বার্তা সংস্থা এএফপি জানতে চেয়েছিল সেভ দ্য চিলড্রেনের কমিউনিকেশন

ম্যানেজার আনিকা রব্বানির কাছে৷ তিনি বললেন, টিকাদান কর্মসূচি, ডায়রিয়ার সঠিক চিকিৎসা ও পরিবার পরিকল্পনা – মূলত এই তিন কারণেই সম্ভব হয়েছে এটা৷ তার সঙ্গে তিনি যোগ করেছেন নারীর ক্ষমতায়ন বিষয়টিকে৷
রব্বানি বলেন, মিলেনিয়াম ডেভেলপমেন্ট গোল বা এমডিজি বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে সঠিক পথেই এগোচ্ছে বাংলাদেশ৷ এমডিজিতে ২০১৫ সালের মধ্যে শিশু মৃত্যুর হার দুই-তৃতীয়াংশ কমিয়ে আনতে বলা হয়েছে৷ বাংলাদেশ সে লক্ষ্য পূরণ করতে পারবে বলেই ধারণা রব্বানির৷ যেটা হয়তো ভারতের পক্ষে সম্ভব নাও হতে পারে, বলেছেন তিনি৷

শিশু মৃত্যুর হার কমানোর ক্ষেত্রে সফলতা ছাড়াও মেয়ে শিশুদের বাঁচিয়ে রাখার ক্ষেত্রেও সফল বাংলাদেশ – বলছে ঐ রিপোর্ট৷ এক্ষেত্রে ক্ষুদ্র ঋণ কর্মসূচির কথা বললেন রব্বানি৷ কারণ এর ফলে নারীরা আগের চেয়ে স্বাবলম্বী হতে পারছে৷ তারা লেখাপড়া শিখছে৷ চাকরি করছে৷ তাই মেয়েরাও যে কিছু করতে পারে সেটা এখন সবাই বুঝতে পারছে৷ ফলে মেয়ে শিশুদের গুরুত্ব বেড়েছে সমাজের কাছে৷
দুই সপ্তাহ পর এমডিজি বাস্তবায়ন নিয়ে জাতিসংঘে আলোচনা হবে৷ সেখানে অনেক দেশ এখনো কেন শিশু মৃত্যুর হার উল্লেখযোগ্য হারে কমাতে পারেনি সেটা নিয়ে আলোচনা হবে৷

সুত্র

Advertisements
এখানে আপনার মন্তব্য রেখে যান »